• Bangladesh Mathematical Olympiad
  • Bangladesh Mathematical Olympiad
  • Bangladesh Mathematical Olympiad
  • Bangladesh Mathematical Olympiad
  • Bangladesh Mathematical Olympiad
  • Bangladesh Mathematical Olympiad
  • Bangladesh Mathematical Olympiad
  • Bangladesh Mathematical Olympiad
  • Bangladesh Mathematical Olympiad
Print

কুমিল্লা অঞ্চল : গণিত জয়ের উৎসব আবার শুরু

কুমিল্লার নবাব ফয়জুন্নেছা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে গতকাল অনুষ্ঠিত হয় গণিত উৎসব। এতে প্রশ্ন করছে এক শিক্ষার্থী l প্রথম আলোকুমিল্লার নবাব ফয়জুন্নেছা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে গতকাল অনুষ্ঠিত হয় গণিত উৎসব। এতে প্রশ্ন করছে এক শিক্ষার্থী l প্রথম আলো

 

বছর ঘুরে দেশব্যাপী আবার শুরু হলো আঞ্চলিক গণিত উত্সব। ‘গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো’ স্লোগান সামনে রেখে কুমিল্লা থেকে শুরু হলো এবারের উত্সব। এতে যোগ দিতে গতকাল সোমবার সকাল থেকেই খুদে গণিতবিদদের পদচারণে মুখর হয়ে ওঠে কুমিল্লা নগরের নবাব ফয়জুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় প্রাঙ্গণ। উৎসবে গণিতকে জয়ের অঙ্গীকার করে শিক্ষার্থীরা।
শিক্ষার্থীদের গণিতভীতি দূর করে গণিতের প্রতি তাদের আগ্রহী করে তোলা এবং আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের জন্য দল নির্বাচনের উদ্দেশ্যে শুরু হয়েছে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো গণিত উৎসব ২০১৭। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির আয়োজনে, ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ও প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে এই উৎসব।
গতকাল গণিত উত্সবে কুমিল্লা, চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ১০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তৃতীয় থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ১ হাজার ৭০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়।
দিনব্যাপী এই উত্সবের মূল আয়োজন ছিল গণিত অলিম্পিয়াড (প্রতিযোগিতা), প্রশ্নোত্তর পর্ব, রুবিকস কিউব প্রতিযোগিতা, সমাপনী পর্ব ও পুরস্কার বিতরণ। জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে সকাল নয়টায় শুরু হয় উদ্বোধনী পর্ব।
জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়িয়ে উত্সব উদ্বোধন করেন নবাব ফয়জুন্নেছা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রোকসানা ফেরদৌস মজুমদার। এ সময় আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের গণিত বিভাগের সাবেক অধ্যাপক সুনীল চন্দ্র দাস। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির পতাকা উত্তোলন করেন উদ্বোধনী পর্বের প্রধান অতিথি ব্রিটেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও বাংলাদেশ গণিত সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক মো. আবদুস সাত্তার। উদ্বোধনী পর্বের বক্তব্যে অধ্যাপক মো. আবদুস সাত্তার বলেন, ‘গণিতের প্রতি মানুষের ভীতি এখন আর নেই। স্কুলে পড়া অবস্থায় আমরা গণিতকে ভয় পেতাম। এখন খুদে শিক্ষার্থীরা গণিতকে জয় করছে।’
৯টা ৪৫ মিনিটে শুরু হয় উৎসবের মূল আয়োজন গণিত প্রতিযোগিতা। এতে প্রাইমারি, জুনিয়র, সেকেন্ডারি ও হায়ার সেকেন্ডারি ক্যাটাগরিতে শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। বেলা সোয়া ১১টায় শুরু হয় প্রশ্নোত্তর পর্ব। খুদে গণিতবিদদের প্রশ্নের উত্তর দেন অধ্যাপক সুনীল চন্দ্র দাস ছাড়াও মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর, কুমিল্লার সহকারী পরিচালক মো. আবুল খায়ের, আন্তর্জাতিক ক্লাউড কম্পিউটিং বিশেষজ্ঞ মাহাদী উজ জামান, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহমুদুল হাসান। এ পর্ব পরিচালনা করেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান। এ পর্ব শেষে শিক্ষার্থীরা হাত উঁচিয়ে মাদক, মিথ্যা ও মুখস্থকে ‘না’ বলার অঙ্গীকার করে।
বেলা একটায় সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কুন্ডু গোপীদাস, কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. আবদুল খালেক, কুমিল্লা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ সৈয়দা বিলকিস আরা বেগম প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে উপাচার্য আলী আশরাফ বলেন, ‘সারা দেশে এই উত্সব গণিতের আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। দৈনন্দিন জীবনে গণিত ছাড়া কেউ চলতে পারে না। হিসাব করেই মানুষ এগিয়ে যাচ্ছে। যে গণিতে ভালো, সে সব বিষয়ে ভালো।’
উৎসবে প্রাইমারি ক্যাটাগরিতে ১৩, জুনিয়রে ২১, সেকেন্ডারিতে ১৫ ও হায়ার সেকেন্ডারিতে ১১ জনকে পুরস্কার হিসেবে মেডেল, সনদ, টি-শার্ট ও প্রথম আলো পত্রিকা দেওয়া হয়। নবাব ফয়জুন্নেছা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে শুভেচ্ছা স্মারক হিসেবে দেওয়া হয় ক্রেস্ট।
এবার ১৫টি আঞ্চলিক উৎসবে প্রায় ২২ হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেবে বলে আশা করছে আয়োজক কমিটি। এই উৎসবের বিজয়ীরা আগামী ১০ ও ১১ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় জাতীয় গণিত উৎসবে অংশ নেবে।

Print

২৩ ডিসেম্বর ২০১৬ শুক্রবার থেকে ঢাকা অঞ্চলের রেজিস্ট্রেশন শুরু

 

Math Olympiad 2017 logo


 

 

ঢাকা অঞ্চল

অন্তর্ভুক্ত জেলাসমূহ: ঢাকা মহানগর, গাজীপুর, মুন্সিগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী ও মানিকগঞ্জ৷

যোগাযোগ: প্রথম আলো কার্যালয়, সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ানবাজার, ঢাকা–১২১৫।

ফোন: ০১৯৭১৩৮৫৫৫১, ০১৭১১০০৪৬০০ ও ০১৬৮৩৮৫৫৫৮৩।


ক্যাটাগির:

প্রাইমারি—তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণি বা সমমান এবং স্ট্যান্ডার্ড-৩ থেকে স্ট্যান্ডার্ড-৫।

জুনিয়র—ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি বা সমমান এবং স্ট্যান্ডার্ড-৬ থেকে স্ট্যান্ডার্ড-৮।

সেকেন্ডারি—নবম, দশম শ্রেণি ও এসএসসি পরীক্ষার্থী বা সমমান এবং ও লেভেল এবং ও লেভেল পরীক্ষার্থী।

হায়ার সেকেন্ডারি—একাদশ, দ্বাদশ শ্রেণি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থী বা সমমান এবং এ লেভেল এবং এ লেভেল পরীক্ষার্থী।

লক্ষ রাখুন

  • ‘আগে এলে আগে’ ভিত্তিতে নির্ধারিত সংখ্যক শিক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন করা হবে। 
  • চারটি ক্যাটাগরিতে গণিত অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত হবে।
  • ২০১৬ সালের অধীত শ্রেণী অনুযায়ী ক্যাটাগরি নির্ধারিত হবে।
  • ব্যক্তিগত পর্যায়ে যে কেউ অংশ নিতে পারবে।
  • রেজিস্ট্রেশন করার সময় শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরিচয়পত্র, বেতনের রসিদ, ফলাফলের বিবরণী কিংবা যেকোনো একটি প্রমাণ হিসেবে দেখাতে হবে।
Print

ফেনীতে আঞ্চলিক গণিত উৎসব শুরু : পৃথিবীর সব দেশে গণিতের ভাষা এক

ফেনীতে আঞ্চলিক গণিত উৎসবের উদ্বোধন করা হচ্ছে। জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান জাতীয় পতাকা, ফেনী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুব্রত নাথ বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড ও ডাচ্-বাংলা ব্যাংক ফেনী শাখার ব্যবস্থাপক মো. হারুন উর রশীদ খান আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন। ছবি: ছবি: আবু তাহেরফেনীতে আঞ্চলিক গণিত উৎসবের উদ্বোধন করা হচ্ছে। জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান জাতীয় পতাকা, ফেনী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুব্রত নাথ বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড ও ডাচ্-বাংলা ব্যাংক ফেনী শাখার ব্যবস্থাপক মো. হারুন উর রশীদ খান আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন। ছবি: ছবি: আবু তাহের

 

আমাদের জীবন চলার পথে গণিত খুব দরকার, গণিতকে ভয় না পেয়ে জয় করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন ফেনী জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান।

আজ মঙ্গলবার সকালে ফেনী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত আঞ্চলিক গণিত উৎসবের উদ্বোধন করে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মো. আমিন উল আহসান এ কথা বলেন। তিনি বলেন, জ্ঞানের পরিধি, বুদ্ধি গণিতের মাধ্যমে বৃদ্ধি পায়।

জেলা প্রশাসক বলেন, গণিত একটি আন্তর্জাতিক ভাষা। পৃথিবীর সব দেশে গণিতের ভাষা এক। এ উৎসব শিশুদের ভালো স্বপ্ন দেখার, বড় হওয়ার সুযোগ করবে।

এর আগে জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান জাতীয় পতাকা, ফেনী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুব্রত নাথ বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড ও ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক ফেনী শাখার ব্যবস্থাপক মো. হারুন উর রশীদ খান আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন।

বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির আয়োজনে, ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায়, প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় ও বন্ধুসভার সহযোগিতায় ফেনীতে আঞ্চলিক গণিত উৎসব শুরু হয়েছে। উৎসবে ফেনী, লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালীর ৮৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৯৭৪ শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। ছবিটি মঙ্গলবার সকালে ফেনী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় থেকে তোলা। ছবি: আবু তাহেরপ্রথম আলো ফেনী বন্ধুসভার সভাপতি জহিরুল ইসলামের সঞ্চালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান।

বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির আয়োজনে, ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায়, প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় ও বন্ধুসভার সহযোগিতায় এ উৎসবে ফেনী, লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালী জেলার ৮৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৯৭৪ শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে।

সকাল সাতটা থেকে ফেনী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় মাঠে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা জড়ো হতে শুরু করেন। সকাল সোয়া নয়টায় অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণা করা হয় এবং পৌনে ১০টায় শিক্ষার্থীদের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা শুরু হয়।

Print

কুমিল্লা অঞ্চলের গণিত উৎসব শুরু

ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো আঞ্চলিক গণিত উৎসব শুরু হয়েছে কুমিল্লায়। নগরের নবাব ফয়জুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে সকাল নয়টার দিকে বেলুন উড়িয়ে উৎসব উদ্বোধন করা হয়। ছবি: এমদাদুল হকডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো আঞ্চলিক গণিত উৎসব শুরু হয়েছে কুমিল্লায়। নগরের নবাব ফয়জুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে সকাল নয়টার দিকে বেলুন উড়িয়ে উৎসব উদ্বোধন করা হয়। ছবি: এমদাদুল হক

 

কুমিল্লা থেকে শুরু হয়েছে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো গণিত উৎসব। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির আয়োজনে কুমিল্লা, চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার শিক্ষার্থীরা এ আয়োজনে অংশ নিচ্ছে।

আজ সোমবার সকাল নয়টার দিকে উৎসবের উদ্বোধন করেন কুমিল্লার নবাব ফয়জুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রোকসানা ফেরদৌস মজুমদার।

ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো কুমিল্লা আঞ্চলিক গণিত উৎসবে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীরা। ছবি: এমদাদুল হকবেলুন উড়িয়ে ও জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে উৎসবের উদ্বোধন করা হয়। উৎসবে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির পতাকা উত্তোলন করে ব্রিটেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আবদুস সাত্তার। আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের গণিতের সাবেক অধ্যাপক সুনীল চন্দ্র দাস। এ সময় জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। উৎসবে তৃতীয় থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ১ হাজার ৭০ শিক্ষার্থী চারটি ক্যাটাগরিতে অংশ নেয়।

উদ্বোধনী পর্বের পর শুরু হয় মূল আয়োজন গণিত অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতা। সোয়া এক ঘণ্টার এই আয়োজনের পর হবে প্রশ্নোত্তর পর্ব।

apmoimoimo-logo-2017