প্রত্যাশা ঠিকমতো পূরণ না হলেও করোনা মহামারির এই দুঃসময়ে একটু হলেও স্বস্তির খবর শোনাল বাংলাদেশের তরুণ শিক্ষার্থীরা। আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড (আইএমও) থেকে এবার তিনটি ব্রোঞ্জপদক ও দুটি সম্মানজনক স্বীকৃতি পেয়েছে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার আইএমও তাদের ওয়েবসাইটে পরীক্ষার ফল ঘোষণা করেছে। এ বছর ব্রোঞ্জপদক পেয়েছে ময়মনসিংহের আনন্দ মোহন কলেজের শিক্ষার্থী মো. মারুফ হাসান এবং ঢাকার নটর ডেম কলেজের তাহমিদ হামীম চৌধুরী ও আদনান সাদিক। এ ছাড়া সম্মানজনক স্বীকৃতি পেয়েছে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নুজহাত আহমেদ এবং আনন্দ মোহন কলেজের তাহজিব হোসেন খান।

imo 2021 bangladesh team marks

শিক্ষার্থীদের এই সাফল্যে অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সহসভাপতি অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল। ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ও প্রথম আলোর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি দেশজুড়ে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে নানা ধাপে গণিত দলের সদস্যদের নির্বাচন করে।

গণিত অলিম্পিয়াডে প্রতিটি দেশ থেকে ছয়জন প্রতিযোগী অংশ নেয়। প্রত্যেককে ৪২ নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। বিশ্বজুড়ে করোনা সংক্রমণের কারণে এ বছর ৬২তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের (আইএমও) প্রতিযোগিতা হয়েছে ভার্চ্যুয়ালি। এবারের আয়োজক দেশ রাশিয়া। গত বছরও গণিত অলিম্পিয়াডের আয়োজন রাশিয়া থেকে ভার্চ্যুয়ালি হয়েছে।

গত বছর ৬১তম আইএমওতে বাংলাদেশ ১টি রুপার পদক ও ৫টি ব্রোঞ্জপদক পেয়েছিল। আর ১১৮ নম্বর পেয়ে ১০৭টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৩৮তম।

অন্যদিকে এ বছর ৬৮ নম্বর পেয়ে বাংলাদেশ ১০৭টি দেশের মধ্যে ৪৩তম স্থান অধিকার করেছে। এবারের প্রতিযোগিতায় ভারত ২৬তম, শ্রীলঙ্কা ৮১তম, নেপাল ৯১তম ও পাকিস্তান ১০৩তম স্থান অধিকার করেছে। এর আগে ২০১৮ সালে গণিত অলিম্পিয়াডে প্রথমবারের মতো স্বর্ণপদক জিতেছিল বাংলাদেশের শিক্ষার্থী আহমেদ জাওয়াদ চৌধুরী।

১৯ ও ২০ জুলাই বাংলাদেশ দলের ছয় শিক্ষার্থী ঢাকা, ময়মনসিংহ, কুষ্টিয়া ও দিল্লি থেকে অলিম্পিয়াডে ভার্চ্যুয়াল পরীক্ষায় অংশ নেয়।

ফল ঘোষণার পর বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সদস্য অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের এই সাফল্যে আমি দারুণভাবে খুশি।’

এ বছর দলীয়ভাবে ২৫২ নম্বরের মধ্যে ২০৮ নম্বর এবং ৬টি সোনার পদক পেয়ে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছে চীন। রাশিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়া যথাক্রমে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে।

ডাচ্‌–বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কাশেম মোহাম্মদ শিরিন পদক বিজয়ীসহ দলের সব সদস্যকে অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের এই সাফল্য করোনাকালে দেশের মানুষকে উৎসাহিত করবে।

বাংলাদেশ দলের কোচ মাহবুব মজুমদার বলেন, কারোনার কারণে এবারের গণিত দলের সব সদস্যকে নিয়ে আবাসিক ক্যাম্প আয়োজন করা সম্ভব হয়নি। ফলে প্রস্তুতিতে সীমবদ্ধতা ছিল। এরপরও শিক্ষার্থীদের এই সাফল্য সবাইকে অনুপ্রাণিত করবে।