All the latest activities

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive

কক্সবাজারে আঞ্চলিক গণিত উৎসবের প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রশ্ন করছে এক শিক্ষার্থী। গতকাল কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে সমবেত শিক্ষার্থীরা l ছবি: সুপ্রিয় চাকমাকক্সবাজারে আঞ্চলিক গণিত উৎসবের প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রশ্ন করছে এক শিক্ষার্থী। গতকাল কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে সমবেত শিক্ষার্থীরা l ছবি: সুপ্রিয় চাকমা

 

শিক্ষার্থীদের কেউ এসেছে পাহাড় ডিঙিয়ে। কাউকে পাড়ি দিতে হয়েছে নদী ও সাগর। পৌষের কনকনে ঠান্ডা উপেক্ষা করে কুয়াশায় ঢাকা সকালে তারা হাজির কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে। গণিতের ভয়কে জয় করতে দুর্গম পথ ও ঠান্ডা তুচ্ছ করেছে তারা। পরীক্ষা, প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশ নেওয়া, গান, নাচসহ নানা আয়োজনে দিনভর মেতে ছিল প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী।
গতকাল শনিবার সকাল সোয়া নয়টায় কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো আঞ্চলিক গণিত উৎসবের। জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, বুদ্ধিকে পরিপক্ব করে গণিত। মানবসভ্যতায় গণিতের অবদান অনেক। তাই গণিতকে জয় করতে হবে। এ সময় শিক্ষার্থীরা হাত তুলে গণিতকে জয় করার শপথ নেয়। 
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা তোলেন ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের কক্সবাজারের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক মো. সাজ্জাদুর রহমান। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. নাছির উদ্দিন। 
উদ্বোধনী পর্বে বক্তব্য দেন কক্সবাজার সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাম মোহন সেন, কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. নাছির উদ্দিন। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন প্রথম আলো কক্সবাজারের নিজস্ব প্রতিবেদক আব্দুল কুদ্দুস। 
‘গণিত শেখো স্বপ্ন দেখো’ স্লোগানে এই উৎসবের আয়োজক বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি। ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ও প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় গতকালের এ উৎসবে অংশ নেয় কক্সবাজার ও বান্দরবানের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৮৫৭ জন শিক্ষার্থী। উদ্বোধন শেষে শিক্ষার্থীরা অংশ নেয় এক ঘণ্টার লিখিত পরীক্ষায়। এরপর ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বন্ধুসভার সদস্যদের পাশাপাশি উপস্থিত শিক্ষার্থীদের মধ্যে কয়েকজন এ আয়োজনে অংশ নেয়।
এরপর ছিল মজার পর্ব—প্রশ্নোত্তর। কারও প্রশ্ন ছিল, মোমবাতির শিখা ওপরের দিকে যায় কেন? কেউবা জানতে চেয়েছে, বোকামির সঙ্গে গণিতের সর্ম্পক কী? শূন্য জোড় নাকি বিজোড়? শূন্য ঋণাত্মক নাকি ধনাত্মক? সময় কেন আপেক্ষিক? খুদে গণিতবিদদের একের পর এক বুদ্ধিদীপ্ত প্রশ্নের উত্তর দিতে মঞ্চে ছিলেন কক্সবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ এ কে এম ফজলুল করিম চৌধুরী, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষক আরশাদ চৌধুরী ও নোভা আহমেদ, বদরখালী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ফজলুল হক, কক্সবাজার সরকারি কলেজের গণিত বিভাগের প্রধান আবদুল কুদ্দুস, প্রভাষক নিজাম উদ্দিন ফারুকী, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মফিজুল আলম, কক্সবাজার সিটি কলেজের পদার্থবিদ্যার শিক্ষক জেবুন্নেছা ও প্রথম আলো যুব কর্মসূচির সমন্বয়ক মুনির হাসান। মজার প্রশ্ন করে পুরস্কার জিতে নেয় শিক্ষার্থীরা। 
উৎসবে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা মুখস্থ, মাদক ও মিথ্যাকে ‘না’ বলার অঙ্গীকার করে। বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণের আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে কক্সবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ এ কে এম ফজলুল করিম চৌধুরী বলেন, সবাইকে নিজের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে হবে। এ দেশ, এ মাটি আমার—এই চেতনায় শিক্ষার্থীদের দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে।

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive

বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি কর্তৃক আয়োজিত ডাচ্-বাংলা ব্যাংক—প্রথম আলো গণিত উৎসব ২০১৭’ এখন সারা দেশের শিক্ষার্থীদের প্রাণের উৎসবে পরিণত হয়েছে। 

২০১৭ সালের  জুলাই মাসে ব্রাজিলে অনুষ্ঠেয় ৫৮তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের জন্য 

বাংলাদেশ গণিত দলের সদস্যদের নির্বাচনের লক্ষ্যে এ বছর ১৫টি শহরে আঞ্চলিক গণিত 

উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে

এ বছরের আঞ্চলিক পর্ব ১৯ ডিসেম্বর ২০১৬ শুরু হয়েছে, শেষ হবে ২৭ জানুয়ারির ২০১৭ শুক্রবার।সব আঞ্চলিক উৎসবের বিজয়ীদের নিয়ে আগামী ১০  ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ শুক্র  শনিবার

ঢাকার সেন্ট যোসেফ হায়ার সেকেন্ডারি স্কুলে (আসাদ এভিনিউ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা) অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় গণিত উৎসব ২০১৭।


জাতীয় গণিত উৎসবের তারিখ:
 ১০  ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ শুক্র  শনিবার 

ভেন্যু: সেন্ট যোসেফ হায়ার সেকেন্ডারি স্কুল,(আসাদ এভিনিউ, মোহাম্মদপুর), ঢাকা। 

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive

রংপুর জিলা স্কুল মাঠে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো গণিত উৎসবে বিজয়ীদের সঙ্গে সেলফি তুলছে এক প্রতিযোগী l ছবি: সোয়েল রানারংপুর জিলা স্কুল মাঠে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো গণিত উৎসবে বিজয়ীদের সঙ্গে সেলফি তুলছে এক প্রতিযোগী l ছবি: সোয়েল রানা

 


শীতের কুয়াশা মোড়ানো সকাল। কনকনে বাতাস। কখনো সামান্য সূর্যের ছটা। কখনোবা মুষলধারে বৃষ্টি। রোদ-বৃষ্টির এমন খেলার মধ্যেই আনন্দমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হলো গণিত উৎসব।
ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো আঞ্চলিক গণিত উৎসব গতকাল সোমবার অনুষ্ঠিত হয় রংপুর জিলা স্কুল মাঠে। ‘গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো’ স্লোগান সামনে রেখে রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাটের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১ হাজার ৫০৭ জন শিক্ষার্থী এ উৎসবে অংশ নেয়।
সকাল নয়টায় জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় উৎসব। জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন রংপুরের জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার। বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক গণিত উৎসবের পতাকা উত্তোলন করেন যথাক্রমে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক রংপুর শাখার ব্যবস্থাপক শিশ মুহম্মদ আবু হানিফা ও রংপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান। এরপর জেলা প্রশাসক বেলুন উড়িয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে উৎসবের উদ্বোধন করেন।
উৎসব উদ্বোধনকালে জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার বলেন, গণিতের ভীতি দূর করতে প্রথম আলো দেশব্যাপী গণিত উৎসবের মাধ্যমে আন্দোলন শুরু করেছে। তারা সফলও হয়েছে। প্রমাণ আজকের (গতকাল) এই সকাল। শীতের মধ্যে এই সকালে এত শিক্ষার্থী-অভিভাবকের উপস্থিতি তা প্রমাণ করেছে।
উদ্বোধনী পর্ব শেষে শিক্ষার্থীরা সারিবদ্ধভাবে শ্রেণিকক্ষে চলে যায় গণিত প্রতিযোগিতার পরীক্ষা দিতে। ৯টা ৫০ মিনিট থেকে সোয়া ঘণ্টার পরীক্ষা শেষে স্কুলমাঠের টানানো শামিয়ানার নিচে এসে বসে তারা। এরপর বন্ধুসভার বন্ধুদের পরিবেশনায় গণিতের গান ছাড়া আরও কয়েকটি গান পরিবেশিত হয়।
গান শেষে উৎসবের অন্যতম আকর্ষণ প্রশ্নোত্তর পর্ব যখন শুরু হবে, ঠিক সেই মুহূর্তে আকাশটা ছেয়ে যায় কালো মেঘে। একটু পর নামে বৃষ্টি। শুরু হয় সবার ছোটাছুটি। আবারও শ্রেণিকক্ষে গিয়ে অবস্থান। এভাবে কাটে দুপুর সাড়ে ১২টা। বৃষ্টি থেমে যায়। তবে সূর্য-মেঘের লুকোচুরি খেলা চলে থেমে থেমে।
এমন লুকোচুরির মধ্যে শুরু প্রশ্নোত্তর পর্ব। ‘চাঁদে লেখার জন্য বিশেষ ধরনের কলম কেন ব্যবহার করতে হয়’, ‘জ্যোৎস্নার আলোতে রং দেখা যায় না কেন?’, ‘আকাশের তারা কেন গণনা করা যায় না’, ‘রাতের বেলা যখন আমরা চলাচল করি তখন আকাশের চাঁদ-তারাও কেন আমাদের সঙ্গে সঙ্গে যায়’—এমন মজার সব প্রশ্ন শিক্ষার্থীদের। আর তাদের অনুসন্ধিৎসার জবাবও দেন মঞ্চ থেকে শিক্ষকেরা। মজার প্রশ্ন, মজার উত্তরে জমে ওঠে প্রশ্নোত্তর পর্ব।
প্রশ্নের জবাব দেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রুহুল আমিন, রংপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের গণিত বিভাগের প্রভাষক রুহুল আমিন এবং রংপুর জিলা স্কুলের গণিতের শিক্ষক শফিয়ার রহমান।
প্রশ্নোত্তর পর্ব শেষে প্রাইমারি, জুনিয়র, সেকেন্ডারি ও হায়ার সেকেন্ডারি ক্যাটাগরিতে জয়ী ৮০ খুদে গণিতবিদের গলায় পরিয়ে দেওয়া হয় মেডেল। ছিল টি-শার্টও।

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive

রংপুর জিলা স্কুলে আজ সোমবার সকালে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো গণিত উৎসবের উদ্বোধন করা হয়। ছবি: সোয়েল রানারংপুর জিলা স্কুলে আজ সোমবার সকালে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো গণিত উৎসবের উদ্বোধন করা হয়। ছবি: সোয়েল রানা

 

মাঝরাতে বৃষ্টি হয়েছে। সকাল থেকেই ঘন কুয়াশা। সঙ্গে হাড়কাঁপানো শীত। তাতে কী? গণিত উৎসবে প্রতিযোগীদের ভিড় কমেনি একটুও। গরম পোশাক গায়ে চাপিয়ে ঠিক সময়ে রংপুর জিলা স্কুলের মাঠে হাজির সবাই।

উৎসবে আগত প্রতিযোগীরা। ছবি: সোয়েল রানাআজ সোমবার সকাল নয়টার দিকে বেলুন ও জাতীয় পতাকা উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার। আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন ডাচ্‌–বাংলা ব্যাংকের রংপুর শাখার ব্যবস্থাপক শিষ মুহম্মদ আবু হানিফা। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা তোলেন রংপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক এ আর মিজানুর রহমান। উৎসবে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়।

উৎসবে খুদে প্রতিযোগীরা। ছবি: সোয়েল রানাউৎসবে চার ক্যাটাগরিতে অংশ নিয়েছে রংপুর বিভাগের কয়েকটি জেলা থেকে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাট জেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১ হাজার ৫০৭ জন শিক্ষার্থী এতে অংশ নেয়। উদ্বোধন পর্বের পরে সারিবদ্ধভাবে বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে শিক্ষার্থীরা ক্লাসে চলে যায়। সকাল ৯টা ৫০ মিনিটে শুরু হয় মূল্যায়ন পরীক্ষা। সোয়া ঘণ্টার পরীক্ষা শেষে প্রশ্নোত্তর পর্ব শুরু হওয়ার কথা।

বাদ্যের তালে তালে স্কুলে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। ছবি: সোয়েল রানা

উৎসবে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান উপস্থিত ছিলেন।

বেলুন উড়িয়ে রংপুর জিলা স্কুলে উৎসবের উদ্বোধন করা হয়। ছবি: সোয়েল রানা

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive

 

Math Olympiad 2017 logo


আজকের তরুণ প্রজন্ম গণিত জয়ের যে স্বপ্ন দেখছে, তা সত্যি হবেই। গণিত নিয়ে সব ভীতি কাটিয়ে তারা সাফল্যের চূড়ায় পৌঁছাবেই। সেই দিন খুব বেশি দূরে নয়। বগুড়ার বিয়াম মডেল ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজে গতকাল শনিবার ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো গণিত উৎসবের আঞ্চলিক আসর থেকে এমন প্রত্যয়ের কথা শোনা গেল শিক্ষার্থী ও অতিথিদের কণ্ঠে।

রংবেরঙের স্কুল পোশাক পরে আসা সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর হইচই আর উল্লাসে মুখরিত হয়ে উঠেছিল কলেজ চত্বর। তাদের মুখরতা কনকনে শীতের সকালে উৎসবে আসা অতিথি ও অভিভাবকদেরও যেন ছুঁয়ে গিয়েছিল। উৎসবে বগুড়া ছাড়াও জয়পুরহাট, গাইবান্ধা ও সিরাজগঞ্জ জেলার শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির আয়োজনে এবং প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় এ অনুষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষক ডাচ্-বাংলা ব্যাংক।
সকাল নয়টায় সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে উৎসব শুরু হয়। বগুড়ার জেলা প্রশাসক মো. আশরাফ উদ্দিন জাতীয় পতাকা, বিয়াম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. মুস্তাফিজুর রহমান জাতীয় অলিম্পিয়াডের পতাকা এবং ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের বগুড়া শাখার ব্যবস্থাপক ফজলুল কবির আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন। পরে বেলুন উড়িয়ে উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন জেলা প্রশাসক।
গণিত শেখার প্রতি শিক্ষার্থীদের উৎসাহ দিয়ে জেলা প্রশাসক মো. আশরাফ উদ্দিন বলেন, গণিত নিয়ে একসময় শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভীতি ও আতঙ্ক ছিল। এখন তা ভীতির বিষয় নয়। শিক্ষার্থীরা আনন্দ নিয়ে এই গণিত উৎসবে যোগ দিচ্ছে। ভীতি কাটিয়ে এই বিষয়টি শিক্ষার্থীদের কাছে সহজ করে তুলে ধরার ক্ষেত্রে অনবদ্য ভূমিকা পালন করছে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো। গণিত জয়ের স্বপ্ন একদিন সত্যি হবেই।
জেলা প্রশাসক বলেন, যারা সেরা তারা কখনো মাদক নেয় না। মিথ্যা বলে না। দুর্নীতি করে না। আর সেরা মেয়েরা কখনো বাল্যবিবাহে রাজি হয় না।
এরপর গণিতের ওপর ১ ঘণ্টা ১৫ মিনিটের মূল্যায়ন পরীক্ষা শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় দ্বিতীয় পর্ব। বগুড়ার আমরা কজন শিল্পীগোষ্ঠীর নৃত্যশিল্পীরা অনুষ্ঠানে দুটি নাচ পরিবেশন করেন। সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী লাবণ্য ও তার দল গণিতের গান গেয়ে শোনায়। এরপর শুরু হয় প্রশ্নোত্তর পর্ব। এ পর্ব সঞ্চালন করেন জাতীয় গণিত অলিম্পিয়াড দলের মাহমুদুল হাসান সোহাগ। শিক্ষার্থীদের প্রশ্নের উত্তর দেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের অধ্যাপক লায়েক সাজ্জাদ এন্দেল্লাহ, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক খায়রুল আলম, সরকারি আজিজুল হক কলেজের গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আলম মণ্ডল, রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ফারুক আহমেদ এবং পুলিশ লাইনস স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রভাষক মাহফুজুর রহমান। এ পর্বে শিক্ষার্থীদের মাদক, মিথ্যা ও মুখস্থকে ‘না’ বলে শপথ করান মাহমুদুল হাসান। অতিথিদের বক্তব্য ও আঞ্চলিক পর্বে বিজয়ীদের হাতে পদক তুলে দেওয়ার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়।
অতিথির বক্তব্যে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের বগুড়ার ব্যবস্থাপক ফজলুল কবির বলেন, গণিত শিখে জীবন সুন্দর করে গড়ে তুলতে হবে। দেশের জন্য কাজ করতে হবে।
বিয়াম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘সুন্দর আগামীর জন্য শিক্ষার্থীদের আলোকিত মানুষ হতে হবে। গণিত জয়ের এই চ্যালেঞ্জের জন্য শিক্ষার্থীদের নিজেকে তৈরি থাকতে হবে। গণিত জয়ের মাধ্যমে বিশ্বকে জয় করতে হবে।’
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সহযোগী অধ্যাপক খায়রুল আলম, প্রথম আলোর বগুড়ার অফিস ব্যবস্থাপক শরিফুল ইসলাম ও আঞ্চলিক বিক্রয় নির্বাহী জাকির হোসাইন বক্তব্য দেন।
অনুষ্ঠান শেষে প্রাথমিক ক্যাটাগরিতে ১৬, জুনিয়র ক্যাটাগরিতে ১৩, সেকেন্ডারিতে ১৫ এবং হায়ার সেকেন্ডারি ক্যাটাগরিতে ১৫ জনসহ মোট ৫৮ জনকে বিজয়ী ঘোষণা করে তাদের হাতে মেডেল, টি-শার্ট ও ঢাকার চিঠি তুলে দেওয়া হয়। এ ছাড়া বিয়াম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মুস্তাফিজুর রহমানের হাতে তুলে দেওয়া হয় ভেন্যু স্মারক।

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive

পূর্বের ঘোষণা অনুযায়ি গতকাল ২৩ ডিসেম্বর ২০১৬ সকাল থেকে ঢাকা আঞ্চলিক গণিত উৎসবের রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম শুরু হয়। রেজিস্ট্রেশন শুরুর দ্বিতীয় দিন অাজ ২৪ ডিসেম্বর ‘আগে এলে আগে’ ভিত্তিতে নির্ধারিত সংখ্যক শিক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি। 


 

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive

গণিত নিয়ে পরীক্ষা চলছে। সমাধান নিয়ে ভাবছে শিশুটি। গতকাল রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত গণিত উৎসবের দৃশ্য l ছবি: প্রথম আলোগণিত নিয়ে পরীক্ষা চলছে। সমাধান নিয়ে ভাবছে শিশুটি। গতকাল রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত গণিত উৎসবের দৃশ্য l ছবি: প্রথম আলো

 

যখন অঙ্ক করি, মনে হয় শুধু অঙ্কই করি। আবার কখনো কিছুতেই অঙ্ক ভালো লাগে না। কেন এমন হয়? গণিত দিয়ে কেন নিজের নাম লেখা যায় না? আকাশের তারাগুলো কেন পাঁচকোনা বিশিষ্ট মনে হয়? খুদে গণিতবিদদের এমনই নানা মজার প্রশ্ন আর মঞ্চে উপস্থিত অতিথিদের উত্তরের মধ্য দিয়ে গতকাল শুক্রবার রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত হয়েছে গণিত উৎসবের আঞ্চলিক পর্ব।
ছুটির দিনে কুয়াশায় ঢাকা চারপাশ; সঙ্গে ঠান্ডা বাতাস—কিছুই ঠেকাতে পারেনি খুদে গণিতবিদদের। সাতসকালেই ভরে গিয়েছিল রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের মাঠটি। আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগেই যেন শুরু হয়ে যায় গণিত উৎসব। প্রথম আলো বন্ধুসভার স্টল ও বইয়ের দোকানে তখনো উপচে পড়া ভিড়। তবে ঘড়িতে যখন সকাল সাড়ে আটটা, তখনই মঞ্চে বেজে উঠল জাতীয় সংগীত। শুরু হলো গণিত উৎসব। সহস্র কণ্ঠে ঘোষিত হলো সবার কাছে সহজ হয়ে গেছে গণিত।
বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির আয়োজন, ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতা ও প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় গতকালের এ উৎসবে অংশ নেয় রাজশাহী, নাটোর, নওগাঁ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৯০৩ জন শিক্ষার্থী।
উদ্বোধনী পর্বে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা, আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা ও ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পতাকা উত্তোলন করেন যথাক্রমে রাজশাহী জেলা প্রশাসক কাজী আশরাফ উদ্দিন, রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের প্রধান শিক্ষক নূরজাহান বেগম ও ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের স্থানীয় ব্যবস্থাপক নজরুল ইসলাম। বেলুন উড়িয়ে জেলা প্রশাসক উৎসবের উদ্বোধন ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, প্রথম আলো নবীন শিক্ষার্থীদের সুন্দর পথের সন্ধান দেখাচ্ছে। চমৎকার এ আয়োজনের জন্য তিনি প্রথম আলো কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান।
উদ্বোধনী শেষে শিক্ষার্থীরা অংশ নেয় এক ঘণ্টার লিখিত পরীক্ষায়। সোয়া ১১টায় হল থেকে বেরিয়ে আসে শিক্ষার্থীরা। এ সময় মঞ্চে বেজে ওঠে গণিতের গান। সঙ্গে সঙ্গে কে কার আগে মঞ্চের সামনে বসবে, তা নিয়ে শুরু হয় শিক্ষার্থীদের প্রতিযোগিতা।
এরপর শুরু হয় উৎসবের সবচেয়ে মজার পর্ব—প্রশ্নোত্তর। এ সময় মঞ্চে ছিলেন রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইকবাল মতিন, অধ্যাপক ফিরুজ আলম, সহকারী অধ্যাপক আবদুর রাজ্জাক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সালেহ হাসান নকিব, রাজশাহী টিচার্স ট্রেনিং কলেজের সাবেক উপাধ্যক্ষ আবদুস সামাদ প্রমুখ। এই পর্বে শিক্ষার্থীরা মজার মজার প্রশ্ন করে পুরস্কার জিতে নেয়।
দুপুরের বিরতির পর উৎসব শুরু হয় বন্ধুসভার বন্ধু রেজাউল করিমের গান দিয়ে। উপস্থিত সবাই গানের সঙ্গে ঠোঁট মেলায়। কয়েকজন শিক্ষার্থী গান ও কবিতা আবৃত্তি করে শোনায়। অনুষ্ঠানের সঞ্চালক বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডের সদস্য জাহিদ হুসাইন শিক্ষার্থীদের মুখস্থ, মাদক ও মিথ্যাকে না বলার অঙ্গীকার করান।
পুরস্কার বিতরণের আগে এক মিনিট পর্বে অতিথিরা সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন। এ সময় অধ্যাপক ইকবাল মতিন অমসৃণ খেজুরগাছ থেকে মিষ্টি রস বের করার সঙ্গে তুলনা করে গণিতের অধ্যয়ন করার কথা বলেন। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে প্রশ্ন করেন, গণিত কঠিন নাকি সহজ? উত্তরে খুদে গণিতবিদেরা সহস্র কণ্ঠে বলে ওঠে, উৎসবে এসে সহজ হয়ে গেছে গণিত।
উৎসবের সমাপনী পর্বে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। এতে প্রাথমিক ক্যাটাগরিতে ১২, জুনিয়রে ২৪, সেকেন্ডারিতে ১৭ ও হায়ার সেকেন্ডারিতে ১২ জনকে পদক ও টি-শার্ট দেওয়া হয়। এ ছাড়া প্রথম আলোর রাজশাহীর নিজস্ব প্রতিবেদক আবুল কালাম মুহম্মদ আজাদ কলেজিয়েট স্কুলের প্রধান শিক্ষক নূরজাহান বেগমের হাতে ভেন্যু স্মারক তুলে দেন।

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive

কুমিল্লার নবাব ফয়জুন্নেছা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে গতকাল অনুষ্ঠিত হয় গণিত উৎসব। এতে প্রশ্ন করছে এক শিক্ষার্থী l প্রথম আলোকুমিল্লার নবাব ফয়জুন্নেছা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে গতকাল অনুষ্ঠিত হয় গণিত উৎসব। এতে প্রশ্ন করছে এক শিক্ষার্থী l প্রথম আলো

 

বছর ঘুরে দেশব্যাপী আবার শুরু হলো আঞ্চলিক গণিত উত্সব। ‘গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো’ স্লোগান সামনে রেখে কুমিল্লা থেকে শুরু হলো এবারের উত্সব। এতে যোগ দিতে গতকাল সোমবার সকাল থেকেই খুদে গণিতবিদদের পদচারণে মুখর হয়ে ওঠে কুমিল্লা নগরের নবাব ফয়জুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় প্রাঙ্গণ। উৎসবে গণিতকে জয়ের অঙ্গীকার করে শিক্ষার্থীরা।
শিক্ষার্থীদের গণিতভীতি দূর করে গণিতের প্রতি তাদের আগ্রহী করে তোলা এবং আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের জন্য দল নির্বাচনের উদ্দেশ্যে শুরু হয়েছে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো গণিত উৎসব ২০১৭। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির আয়োজনে, ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ও প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে এই উৎসব।
গতকাল গণিত উত্সবে কুমিল্লা, চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ১০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তৃতীয় থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ১ হাজার ৭০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়।
দিনব্যাপী এই উত্সবের মূল আয়োজন ছিল গণিত অলিম্পিয়াড (প্রতিযোগিতা), প্রশ্নোত্তর পর্ব, রুবিকস কিউব প্রতিযোগিতা, সমাপনী পর্ব ও পুরস্কার বিতরণ। জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে সকাল নয়টায় শুরু হয় উদ্বোধনী পর্ব।
জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়িয়ে উত্সব উদ্বোধন করেন নবাব ফয়জুন্নেছা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রোকসানা ফেরদৌস মজুমদার। এ সময় আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের গণিত বিভাগের সাবেক অধ্যাপক সুনীল চন্দ্র দাস। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির পতাকা উত্তোলন করেন উদ্বোধনী পর্বের প্রধান অতিথি ব্রিটেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও বাংলাদেশ গণিত সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক মো. আবদুস সাত্তার। উদ্বোধনী পর্বের বক্তব্যে অধ্যাপক মো. আবদুস সাত্তার বলেন, ‘গণিতের প্রতি মানুষের ভীতি এখন আর নেই। স্কুলে পড়া অবস্থায় আমরা গণিতকে ভয় পেতাম। এখন খুদে শিক্ষার্থীরা গণিতকে জয় করছে।’
৯টা ৪৫ মিনিটে শুরু হয় উৎসবের মূল আয়োজন গণিত প্রতিযোগিতা। এতে প্রাইমারি, জুনিয়র, সেকেন্ডারি ও হায়ার সেকেন্ডারি ক্যাটাগরিতে শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। বেলা সোয়া ১১টায় শুরু হয় প্রশ্নোত্তর পর্ব। খুদে গণিতবিদদের প্রশ্নের উত্তর দেন অধ্যাপক সুনীল চন্দ্র দাস ছাড়াও মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর, কুমিল্লার সহকারী পরিচালক মো. আবুল খায়ের, আন্তর্জাতিক ক্লাউড কম্পিউটিং বিশেষজ্ঞ মাহাদী উজ জামান, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহমুদুল হাসান। এ পর্ব পরিচালনা করেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান। এ পর্ব শেষে শিক্ষার্থীরা হাত উঁচিয়ে মাদক, মিথ্যা ও মুখস্থকে ‘না’ বলার অঙ্গীকার করে।
বেলা একটায় সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কুন্ডু গোপীদাস, কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. আবদুল খালেক, কুমিল্লা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ সৈয়দা বিলকিস আরা বেগম প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে উপাচার্য আলী আশরাফ বলেন, ‘সারা দেশে এই উত্সব গণিতের আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। দৈনন্দিন জীবনে গণিত ছাড়া কেউ চলতে পারে না। হিসাব করেই মানুষ এগিয়ে যাচ্ছে। যে গণিতে ভালো, সে সব বিষয়ে ভালো।’
উৎসবে প্রাইমারি ক্যাটাগরিতে ১৩, জুনিয়রে ২১, সেকেন্ডারিতে ১৫ ও হায়ার সেকেন্ডারিতে ১১ জনকে পুরস্কার হিসেবে মেডেল, সনদ, টি-শার্ট ও প্রথম আলো পত্রিকা দেওয়া হয়। নবাব ফয়জুন্নেছা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে শুভেচ্ছা স্মারক হিসেবে দেওয়া হয় ক্রেস্ট।
এবার ১৫টি আঞ্চলিক উৎসবে প্রায় ২২ হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেবে বলে আশা করছে আয়োজক কমিটি। এই উৎসবের বিজয়ীরা আগামী ১০ ও ১১ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় জাতীয় গণিত উৎসবে অংশ নেবে।

Bangladesh Mathematical Olympiad Committee Logo
Bangladesh Mathematical Olympiad Committee is the organization who organizes the Math Olympiad each year across the country with the support form Dutch Bangla Bank & Prothom Alo.
© 2019, Bangladesh Mathematical Olympiad Committee

Quick Links

Contact Info

+880-2-8180078-81 Ex-2128
info@matholympiad.org.bd

Build With by Nasir Khan Saikat
Theme by JoomShaper

Search