হবিগঞ্জে অনুষ্ঠিত গণিত উৎসবে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের একাংশ। ছবিটি আজ বি কে জি সি বালিকা সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মাঠ থেকে তোলা। ছবি: আনিস মাহমুদরাজশাহী, নড়াইল, টাঙ্গাইল ও হবিগঞ্জে আজ শনিবার সকালে শুরু হয়েছে গণিত উৎসব। ‘গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো’—স্লোগান নিয়ে শুরু হওয়া উৎসবের আয়োজক বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি। এতে পৃষ্ঠপোষকতা করছে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড। আর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় রয়েছে প্রথম আলো। 
আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:
রাজশাহী: ঘড়ির কাঁটায় সকাল নয়টা। এক হাজার শিক্ষার্থীর কণ্ঠে ধ্বনিত হলো জাতীয় সংগীত। তোলা হলো জাতীয় পতাকা। ‘গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো’—স্লোগান লেখা উৎসবের ব্যানার নিয়ে আকাশে উড়ে গেল একঝাঁক বেলুন। শুরু হলো রাজশাহী আঞ্চলিক গণিত উৎসব। রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে আয়োজিত উৎসবে রাজশাহী, নওগাঁ, নাটোর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৬৮টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী উৎসবে অংশ নেয়। 
উৎসবের শুরুতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মকবুল হোসেন। জাতীয় গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন ডাচ্-বাংলা লিমিটেডের স্থানীয় শাখার ব্যবস্থাপক আবু আলী মোহাম্মদ আরিফুর রহমান ও আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষক জালাল উদ্দিন। সকাল পৌনে ১০টায় শুরু হয় পরীক্ষা। বেলা ১১টায় পরীক্ষা শেষে চলছে প্রশ্নোত্তর পর্ব। এই পর্বে শিক্ষার্থীদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও প্রথম আলোর যুববিষয়ক কর্মসূচির সমন্বয়ক মুনির হাসান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক অরুণ কুমার বসাক, গণিত বিভাগের শিক্ষক আসাবুল হক, রবিউল হক ও নগরের ছোটবনগ্রাম ইউসেপ স্কুলের শিক্ষক মাসুদ রানা। 

টাঙ্গাইল: টাঙ্গাইলের স্থানীয় বিবেকানন্দ হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে সকালে উৎসবের উদ্বোধন করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সালেহ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন খাঁ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট গণিত বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক খোদাদাদ খান, প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম, বিবেকানন্দ স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আনন্দ মোহন দে বক্তব্য দেন। উৎসবে জেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৩৫০ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে।
নড়াইল: নড়াইল শহরজুড়ে উৎসবের আমেজ। ঘন কুয়াশা আর হাড় কাঁপানো শীত উপেক্ষা করে শিক্ষার্থী, অভিভাবক আর অতিথিরা সকাল নয়টা বাজার আগেই নড়াইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয় চত্বরে জড়ো হতে শুরু করেন। নয়টায় বন্ধুসভার সদস্যদের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় উৎসবের কার্যক্রম। এ সময় জেলা প্রশাসক মো. আবদুল গাফফার খান জাতীয় পতাকা, নড়াইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনিল কুমার বিশ্বাস আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড পতাকা ও ভাষাসৈনিক রিজিয়া খাতুন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড পতাকা তোলেন। কাল ১০টায় ঘণ্টা বাজিয়ে পরীক্ষার কার্যক্রম শুরু করা হয়। মোট ৮৬৬ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়।
হবিগঞ্জ: হবিগঞ্জে শুরু হয়েছে আঞ্চলিক পর্যায়ের গণিত উৎসব। আজ সকাল নয়টায় বি কে জি সি বালিকা সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মাঠে এ উৎসব শুরু হয়। হবিগঞ্জের এ গণিত উৎসবে হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছয় শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। প্রাথমিক, নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক—এই চার বিভাগে শিক্ষার্থীরা গণিত প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছে। ১৩তম গণিত উৎসবের উদ্বোধন করেন ভেন্যু প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক আমেনা খাতুন। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ বৃন্দাবন সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বিজিত কুমার ভট্টাচার্য ও ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের হবিগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ নজমুল হক।