নড়াইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মাঠে গতকাল গণিত উৎসবে প্রশ্ন করে এক শিক্ষার্থী l ছবি: প্রথম আলো

শব্দতরঙ্গ কী, প্লুটোকে গ্রহের তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে কেন—এমন অফুরন্ত প্রশ্ন আর উত্তর। পাশাপাশি নাচ, গান, কবিতা, কুইজ। নানা আয়োজনে গতকাল শনিবার রাজশাহী, টাঙ্গাইল, হবিগঞ্জ ও নড়াইলে হয়ে গেল গণিত উৎসব।
উৎসবে বিশিষ্টজনদের কথায় উঠে আসে গণিতের মাহাত্ম্য, ‘গণিত মানুষকে সৃজনশীল হতে শেখায়’, ‘গণিতের ছন্দ সমগ্র সৃষ্টির মধ্যে নিহিত আছে’।
এ উৎসবের আয়োজক বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি। পৃষ্ঠপোষক ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড। সার্বিক ব্যবস্থাপনায় প্রথম আলো। ‘গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো’ স্লোগান নিয়ে প্রাথমিক, নিম্নমাধ্যমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক—এ চার বিভাগে শিক্ষার্থীরা উৎসবস্থলে অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় অংশ নেয়। চার ভেন্যুতে ১০টি জেলার অন্তত ১৪১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় তিন হাজার শিক্ষার্থী যোগ দেয়।

রাজশাহী: সকাল নয়টায় এক হাজার শিক্ষার্থীর কণ্ঠে ধ্বনিত হলো জাতীয় সংগীত। উত্তোলন করা হলো জাতীয় পতাকা। ‘গণিত শেখো স্বপ্ন দেখো’—স্লোগান লেখা উৎসবের ব্যানার নিয়ে আকাশে উড়ে গেল একঝাঁক বেলুন। শুরু হলো রাজশাহী আঞ্চলিক গণিত উৎসব।
রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে আয়োজিত এ উৎসবে রাজশাহী, নওগাঁ, নাটোর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৬৮টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেয়।
উৎসবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মকবুল হোসেন। জাতীয় গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের স্থানীয় শাখার ব্যবস্থাপক আবু আলী মোহাম্মদ আরিফুর রহমান ও আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষক জালাল উদ্দিন। উদ্বোধনী বক্তব্যে মকবুল হোসেন বলেন, ‘আজকের এই খুদে গণিতবিদদের হাতে যদি থাকে দেশ তাহলে প্রথম আলোর ভাষায় বলতে হয়, পথ হারাবে না বাংলাদেশ।’
সকাল পৌনে ১০টায় শুরু হয় এক ঘণ্টার পরীক্ষা। এরপর প্রশ্নোত্তর পর্ব। এই পর্বে শিক্ষার্থীদের প্রশ্নের উত্তর দেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ইমেরিটাস অধ্যাপক অরুণ কুমার বসাক, গণিত বিভাগের শিক্ষক আসহাবুল হক, রবিউল হক, রাজশাহী টিচার্স ট্রেনিং কলেজের উপাধ্যক্ষ আবদুস সামাদ মণ্ডল, রাজশাহী কলেজের গণিত বিভাগের শিক্ষক শহীদুল আলম ও নগরের ছোটবনগ্রাম ইউসেপ স্কুলের শিক্ষক মাসুদ রানা।
প্রশ্নোত্তর পর্ব শুরুর আগে পাকিস্তানে তালেবানের হামলায় নিহত শিশুদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। পরের শিক্ষার্থী মজার মজার প্রশ্ন করে পুরস্কার জিতে নেয়।
উৎসবে রুবিকস কিউব প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রাজশাহী গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র সাদমান ইবনে সাইফুল।
অনুষ্ঠানের রাজশাহী বন্ধুসভার বন্ধুরা গণিত জয়ের গান ও দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করেন।


প্রশ্ন করছে এক শিক্ষার্থী। গতকাল হবিগঞ্জ বিকেজিসি সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে l ছবি: প্রথম আলো

টাঙ্গাইল: সকাল নয়টায় শুরুর কথা থাকলেও শীত উপেক্ষা করে সাড়ে আটটার মধ্যেই পরিপূর্ণ হয়ে যায় উৎসবস্থল। টাঙ্গাইল শহরের বিবেকানন্দ হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবু সালেহ্ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন খাঁ। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন ইনডিপেনডেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক খোদাদাদ খান, প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম, বিবেকানন্দ স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আনন্দ মোহন দে।
খোদাদাদ খান বলেন, ‘মনে রাখতে হবে, সৃজনশীল না হয়ে পরীক্ষায় এ প্লাস পেয়ে লাভ নেই। গণিত মানুষকে সৃজনশীল হতে শেখায়।’
উদ্বোধনী অধিবেশনের পর পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষা শেষে শুরু হয় কুইজ ও প্রশ্নোত্তর পর্ব। প্রশ্নের উত্তর দেন খোদাদাদ খান, আব্দুল কাইয়ুম, আবু সালেহ্ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন খাঁ, আনন্দ মোহন দে, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের চেয়ারম্যান পিনাকী দে, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সাজ্জাদ ওয়াহিদ ও আহসান হাবিব, পদার্থবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক যোবায়দুল ইসলাম। উৎসবের বিভিন্ন পর্বের সঞ্চালনা করেন জাহিদ হোসাইন খান, মোর্শেদুল আমিন ও টাঙ্গাইল বন্ধুসভার আল মোসাব্বির।

হবিগঞ্জ: হবিগঞ্জ বিকেজিসি বালিকা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ে গতকাল সকাল সাড়ে নয়টায় শুরু হওয়া উৎসবে হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজারের প্রায় ৬০০ শিক্ষার্থী অংশ নেয়। পাশাপাশি ছিলেন তাদের অভিভাবক ও শিক্ষকেরাও। জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে এ গণিত উৎসবের উদ্বোধন করেন বিকেজিসি উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমেনা খাতুন। এ সময় আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন হবিগঞ্জ বৃন্দাবন সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বিজিত কুমার ভট্টাচার্য্য ও বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন ডাচ্-বাংলা ব্যাংক হবিগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ নজমুল হক।
বিজিত কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন, ‘সব শিক্ষার্থীই পড়াশোনায় ভালো করতে চায়। কিন্তু যখন প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়, তখন আমরা সবাই হতাশ হই। এ অপতৎপরতা বন্ধ না হলে শিক্ষার মান নিয়ে আমরা এগোতে পারব না।’ আমেনা খাতুন বলেন, গণিত শিক্ষার্থীদের নতুন পথ দেখাবে।
এরপর পরীক্ষা ও তারপর প্রশ্নোত্তর ও কুইজ প্রতিয়োগিতা শুরু হয়। বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন অনুষ্ঠানের সঞ্চালক বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির একাডেমিক কাউন্সিলর মাহমুদুল হাসান। এ পর্বে উপস্থিত ছিলেন বিকেজিসি উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সুধাংশু কুমার কর্মকার ও নবীগঞ্জ হোমল্যান্ড আইডিয়াল স্কুলের প্রধান শিক্ষক তাপস চন্দ্র আচার্য্য। অনুষ্ঠানে সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন হবিগঞ্জ বন্ধুসভার সদস্যরা।

নড়াইল: ঘন কুয়াশা আর হাড়কাঁপানো শীত উপেক্ষা করে শিক্ষার্থী, অভিভাবক আর অতিথিরা সকাল নয়টা বাজার আগেই নড়াইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয় চত্বরে জড়ো হতে শুরু করেন। নয়টায় বন্ধুসভার সদস্যদের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় উৎসব। এ সময় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন জেলা প্রশাসক আবদুল গাফফার খান, আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা তোলেন নড়াইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনিল কুমার বিশ্বাস এবং বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডের পতাকা তোলেন ভাষাসৈনিক রিজিয়া খাতুন।
জেলা প্রশাসক উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। সকাল ১০টায় ঘণ্টা বাজিয়ে পরীক্ষার কার্যক্রম শুরু হয়। মোট ৮৬৬ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। পরীক্ষা নিয়ে বেশ উত্তেজনা ছিল শিক্ষার্থীদের মধ্যে। কে পাস করবে, ঢাকায় যাওয়ার টিকিট পাবে। মজার পর্ব ছিল প্রশ্নোত্তর পর্ব। নানা প্রশ্নের উত্তর দেন গণিতবিদ সৌমিত্র চক্রবর্তী। গণিত অলিম্পিয়াড একাডেমির কাউন্সিলর দলের সদস্য কামরুল হাসান, সুদীপ্ত, স্বাক্ষর, হাসান ইমাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানস্থলে নির্মিত তাম্রলিপি, গণিত অলিম্পিয়াডের বই, রকমারি ডট কম, বন্ধুসভার চারটি স্টলে বেশ ভিড় দেখা যায়। পরে বন্ধুসভার সদস্যরা সংগীত পরিবেশন করে।
সমাপনীতে বিশিষ্ট সমাজসেবক শৈলেন্দ্রনাথ সাহা, সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনিল কুমার বিশ্বাস বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন প্রথম আলোর নড়াইল প্রতিনিধি কার্ত্তিক দাস।