শুরু হলো গণিতের লড়াই : আইএমও ২০১৩

মুনির হাসান, সান্তা মার্তা (কলম্বিয়া) থেকে |  জুলাই ২৩, ২০১৩

শুরু হলো বিশ্বের প্রাক্-বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়াদের সবচেয়ে আকর্ষণীয় মেধার লড়াই আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড (আইএমও) ২০১৩। গতকাল সোমবার বাংলাদেশ সময় রাত নয়টার দিকে কলম্বিয়ার বিরানকিউলাস শহরে শুরু হয় এর আনুষ্ঠানিকতা।
অলিম্পিয়াডের ৫৪তম এ আসরে অংশ নিচ্ছে ১০৩টি দেশের পাঁচ শতাধিক খুদে গণিতবিদ। দুই দিনের প্রতিযোগিতা শুরু হবে আজ থেকে। প্রতিযোগীদের সাড়ে চার ঘণ্টায় তিনটি গাণিতিক সমস্যার সমাধান করতে হবে।
আইএমওতে নবমবারের মতো অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশের গণিত দল। আইএমওর নিয়মানুসারে গতকাল নিজ নিজ দেশের দলনেতাদের সঙ্গে প্রতিযোগীদের ‘চোখের দেখা’ হয়েছে। বাংলাদেশ দলের দলনেতা মাহবুব আলম মজুমদার হাত নেড়ে তার দলের গণিতবিদদের শুভেচ্ছা জানায়। নিয়ম অনুযায়ী, তিনি ১৮ জুলাই থেকে অন্য দলনেতাদের সঙ্গে ‘অজ্ঞাতবাসে’ রয়েছে। ইতিমধ্যে তারা মূল প্রতিযোগিতার জন্য সমস্যা নির্বাচনও করেছে।
বাংলাদেশ দলের চার খুদে গণিতবিদ হলো ঢাকা কলেজের সৌরভ দাশ ও নূর মোহাম্মদ সফিউল্লাহ, ময়মনসিংহ আনন্দ মোহন কলেজের মো. জাহিদুল হাসান এবং ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের আদীব হাসান।
গত রোববার সকাল থেকে বিভিন্ন দেশের গণিতবিদেরা সান্তা মার্তা শহরে উপস্থিত হয়। সান্তা মার্তার সমুদ্রতীরবর্তী রিসোর্ট ইরোটামায় সব দেশের প্রতিযোগীরা অবস্থান করছে। আজ পরীক্ষা শুরু হওয়া পর্যন্ত উপদলনেতারা সেখানেই অবস্থান করবে। এরপর তারা নগরের অন্য প্রান্তের একটি হোটেলে দলনেতাদের সঙ্গে যোগ দেবে উত্তরপত্র মূল্যায়নের কাজে।
আকাশপথে দীর্ঘ যাত্রা শেষ করে বাংলাদেশ দলের সদস্যরা বিশ্রামও নিয়েছে। মেজাজ বেশ ফুরফুরে। এখন কলম্বিয়ায় গরম কাল। তাপমাত্রাও প্রায় আমাদের দেশের মতোই। সান্তা মার্তা সমুদ্রতীরবর্তী শহর বলে এর তাপমাত্রা একটু বেশি।
ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি সারা দেশ থেকে ১৭টি আঞ্চলিক অলিম্পিয়াডের ২২ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্য থেকে চারজন প্রতিযোগীকে লাল-সবুজের পতাকা বহনের জন্য নির্বাচন করেছে।

আজ কলম্বিয়া যাচ্ছে বাংলাদেশ গণিত দল আরও ভালো করার প্রত্যাশা

আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে (আইএমও) শতাধিক দেশের বেশির ভাগেরই কর্মনৈপুণ্যের ক্ষেত্রে উত্থান-পতন দেখা গেছে। কিন্তু বাংলাদেশ এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার পর থেকে উত্তরোত্তর ভালো করছে। গত বছরের চেয়ে এবার আরও ভালো করার আশা নিয়ে আজ শুক্রবার রাতে ৫৪তম আইএমওতে যোগ দিতে চার প্রতিযোগীসহ পাঁচ সদস্যের বাংলাদেশ দল কলম্বিয়ার সান্তা মার্তা শহরের উদ্দেশে রওনা হবে।
গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ দলকে পরিচয় করিয়ে দিতে জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানানো হয়।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি জামিলুর রেজা চৌধুরী বলেন, আঞ্চলিক ও জাতীয় গণিত উৎসবের মাধ্যমে ২২ হাজার গণিতবিদ থেকে চার প্রতিযোগীকে আইএমওর জন্য মনোনীত করা হয়। তিনি এবারও ভালো করার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।
প্রথম আলোর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ও ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি ওই উৎসবের আয়োজন করে। গত বছর আইএমওতে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো রৌপ্য পদক পায়। এ ছাড়া ২০০৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশ মোট ছয়টি ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছে। সঙ্গে রয়েছে ১৫টি সম্মানসূচক স্বীকৃতি।
অনুষ্ঠানে লাল-সবুজ পতাকা নিয়ে উপস্থিত ছিল এবারের চার প্রতিযোগী ঢাকা কলেজের সৌরভ দাশ ও নূর মোহাম্মদ সফিউল্লাহ, ময়মনসিংহের আনন্দমোহন কলেজের মো. জাহিদুল হাসান, ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের আদীব হাসান। আর দলনেতা ও প্রশিক্ষক মাহবুব মজুমদার ইতিমধ্যে কলম্বিয়া পৌঁছেছেন।
বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সহসভাপতি মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, বাংলাদেশের প্রতিযোগীদের আরও ভালো করতে হলে গণিতের পেছনে আরও বেশি সময় দিতে হবে। আইএমওতে পদকজয়ী বাংলাদেশের প্রতিযোগীরা এখন বিশ্বের নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে উচ্চশিক্ষা নিচ্ছে। তিনি বলেন, সম্প্রতি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নতুন একটি নিয়ম করেছে। এতে কোনো পদকজয়ী গণিতবিদ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের যেকোনো বিভাগে চাইলে ভর্তি হতে পারবে।
গণিত উৎসব ও আইএমওতে বাংলাদেশের যোগদানে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে উল্লেখ করে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কে এস তাবরেজ বলেন, ‘আশা করি বাংলাদেশ কলম্বিয়ায় আরও ভালো করবে।’
অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সহসভাপতি অধ্যাপক মুনিবুর রহমান চৌধুরী, সদস্য মোহাম্মদ কায়কোবাদ, প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম, বাংলাদেশ দলের উপ-দলনেতা মুনির হাসান।

৫৪তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড তিনটি ব্রোঞ্জ পেল বাংলাদেশ

 

মুনির হাসান, সান্তা মার্তা (কলম্বিয়া) থেকে

এবার তিনটি ব্রোঞ্জপদক ও একটি সম্মানসূচক স্বীকৃতি পেল বাংলাদেশ গণিত দল। কলম্বিয়ায় অনুষ্ঠিত ৫৪তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে এ অর্জনের (আইএমও) মাধ্যমে সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় থাকল। গত শুক্রবার রাতে আইএমওর বিচারকেরা পদকের নম্বর চূড়ান্ত করেন।
ব্রোঞ্জপদক পাওয়া বাংলাদেশ গণিত দলের সদস্যরা হলো ঢাকা কলেজের নূর মোহাম্মদ সফিউল্লাহ, সৌরভ দাশ ও ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের আদীব হাসান। ময়মনসিংহ আনন্দমোহন কলেজের মো. জাহিদুল হাসান পেয়েছে সম্মানসূচক স্বীকৃতি।
গণিতের এ বিশ্ব আসরে মোট ৪২ নম্বরের মধ্যে সফিউল্লাহ ২১, আদীব ১৭, সৌরভ ১৫ এবং জাহিদুল ৭ পেয়েছে। ৩১ বা তার চেয়ে বেশি নম্বরপ্রাপ্তরা সোনা, ২৪-৩০-এ রৌপ্য এবং ১৫-২৩-এ ব্রোঞ্জ পদক দেওয়া হয়। ৯৭টি দেশের ৫২৮ জন শিার্থীর মধ্যে মোট ২৭৮ জন পদক পেয়েছে। এর মধ্যে ৪৫ জন সোনা, ৯২ জন রুপা ও ১৪১ জন ব্র্রোঞ্জ এবং ১৪১টি সম্মানসূচক স্বীকৃতি।
পাঁচটি সোনা ও একটি রৌপ্য নিয়ে ২০৮ নম্বর পেয়ে শীর্ষে রয়েছে চীন। আর সমান পদক নিয়ে ২০৪ নম্বর পেয়ে দ্বিতীয় গতবারের চ্যাম্পিয়ন দণি কোরিয়া। বাংলাদেশের মোট নম্বর ৬০। অবস্থান ৬১তম। এবার ভারত ১২২ নম্বর পেয়ে ২৯তম, শ্রীলঙ্কা ৬৫ নম্বর পেয়ে ৫৬তম, পাকিস্তান ২৫ নম্বর পেয়ে ৭৯তম স্থানে রয়েছে। গত বছর আইএমওতে বাংলাদেশ একটি রুপা ও দুটি ব্রোঞ্জ পেয়েছিল।
বাংলাদেশের এবারের প্রাপ্তিতে অংশগ্রহণকারী সদস্যদের অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি জামিলুর রেজা চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশ দলের ফলাফল সন্তোষজনক। আশা করছি শিার্থীরা ভবিষ্যতে আরও ভালো করবে।’ সংগঠনের সহসভাপতি মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, ‘আমি খুবই খুশি হয়েছি এ ফলাফলে। আমাদের ছেলেরা অন্য দেশের তুলনায় ধারাবাহিকভাবে ভালো করছে। এটা সত্যিই অনেক আনন্দের খবর। দলের সবাইকে শুভেচ্ছা।’
কলম্বিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশ দলের কোচ মাহবুব আলম মজুমদারও শিার্থীদের ফলাফলে খুশি। তিনি বলেন, ‘এবার রৌপ্য না পেলেও বাংলাদেশের শিার্থীদের গড় নম্বর বেড়েছে। তবে তারা আরও ভালো করতে পারত।’
এবারের আইএমওতে অংশগ্রহণকারীদের অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কেএস তাবরেজ। তিনি জানান, ধারাবাহিক এ অর্জন বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশকে গৌরবান্বিত করেছে। ডাচ্-বাংলা ব্যাংক অতীতের মতো ভবিষ্যতেও গণিত উৎসবের পৃষ্ঠপোষকতা করবে।
আইএমওতে টানা নয় বছর অংশ নিয়ে বাংলাদেশের অর্জন একটি রৌপ্য, নয়টি ব্রোঞ্জ এবং ১৬টি সম্মানসূচক স্বীকৃতি। ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতা এবং প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় সারা দেশ থেকে ১৭টি গণিত উৎসবের মাধ্যমে প্রায় ২২ হাজার শিার্থী থেকে এবার চারজন প্রতিযোগীকে বাছাই করে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি।math 2

আইএমও ২০১৩-এর বাংলাদেশ দলের নাম ঘোষণা


আগামী ১৭-২৮ জুলাই কলম্বিয়ায় অনুষ্ঠেয় ৫৪তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে(আইএমও) অংশগ্রহণের জন্য ৪ জনের বাংলাদেশ দলের নাম ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি।  
এর আগে আজ সন্ধ্যায় বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় দল ঘোষনার আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যাপক অধ্যাপক ড. মুনিবুর রহমান চৌধুরী, কোষাধ্যক্ষ আব্দুল কাইয়ুম, সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ, অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান, একাডেমিক কাউন্সিলর তামিম শাহরিয়ার সুবিন, সমন্বয়ক বায়েজিদ ভূঁইয়া জুয়েল উপস্থিত ছিলেন।
এবারের দলে নির্বাচিত ৪ সদস্য হলো সদস্যরা হলেন সৌরভ দাস (ঢাকা কলেজ), জাহিদুল হাসান (আনন্দ মোহন কলেজ, ময়মনসিংহ) নূর মোহাম্মদ শফিউল্লাহ (ঢাকা কলেজ) এবং আবিদ হাসান (ময়মনসিংহ জেলা স্কুল)।

অভিনন্দন তোমাদের চার জনকে !

জয় গণিত অলিম্পিয়াড !

মুনির হাসানের বাবার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করছে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি

Ajharul Hoque father of Munir Hasanবাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদন মুনির হাসানের বাবা, পূবালী ব্যাংশের সাবেক মহাব্যবস্থাপক এ এফ এমএজহারুল হক (৭৯) গতকাল শনিবার সহাল ৯টা ৩০ মিনিটে চট্টগ্রামের চান্দগাঁও আবাসাক এলাকায় নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সারে ভুগছিলেন। আজ বাদ আসর জানাজা শেষে রাউজান উপজেলার সুলতানপুর গ্রামে পারিবারিক কবরে তাকে দাফন করা হয়। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, তিন ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন।

মুনির হাসানের বাবার মৃত্যুতে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি গভীরভাবে শোক প্রকাশ করেছে। আল্লাহ তাঁর পরিবারকে এই শোক কাটিয়ে উঠার শক্তি দিক।

অধ্যাপক জামাল নজরুল ইসলাম স্মরণসভা

সদ্যপ্রয়াত আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিজ্ঞানী ও গণিতবিদ অধ্যাপক জামাল নজরুল ইসলামের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি ও প্রথম আলো যৌথভাবে এক স্মরণসভার আয়োজন করেছে। এত উপস্থিত থাকবেন দেশের বিশিষ্ট বিজ্ঞানী, গণিতবিদ, জ্যোতির্বিজ্ঞানীসহ তার বিভিন্ন সময়ের সহকর্মীরা।
এ স্মরণসভা ২৪ মার্চ রোববারবিকেল ৪.৩০ টায় রমনায় অবস্থিত ইনস্টিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইইবি) ইআরসি কনফারেন্স রুমে (তৃতীয় তলায়) অনুষ্ঠিত হবে।

এ স্মরণসভায় আপনাকে আমন্ত্রণ ।

অনুষ্ঠান: অধ্যাপক জামাল নজরুল ইসলাম স্মরণসভা
তারিখ : ২৪ মার্চ ২০১৩, রোববার
সময় : বিকেল ৪.৩০ মিনিট
স্থান: ইআরসি কনফারেন্স রুম (তৃতীয় তলা)
নতুন ভবন, ইনস্টিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইইবি)
রমনা, ঢাকা।

ফেসবুক ইভেন্ট পেজ : https://www.facebook.com/events/357304487719998/

অধ্যাপক জামাল নজরুল ইসলামের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি

2013-03-16-08-15-21-51442a1904d4e-djamalnaবিশিষ্ট গণিতবিদ, পদার্থবিজ্ঞানী ও জোতির্বিদ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এমিরিটাস অধ্যাপক এবং বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সদস্য অধ্যাপক জামাল নজরুল ইসলামের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি।

শনিবার এক শোক বার্তায় বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী, সহসভাপতি অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান বলেন, “তাঁর মৃত্যুতে দেশে বিজ্ঞান চর্চার ক্ষেত্রে এক অপূরণীয় ক্ষতি সাধিত হলো, যা সহজে পূরণ হওয়ার নয়। বিজ্ঞান শিক্ষা ও গবেষণায় তাঁর অবদানের কথা জাতি গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে চিরদিন স্মরণ করবে।”

তারা জামাল নজরুল ইসলামের আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং তাঁর শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

শেষ হলো নবম বাংলাদেশ গণিত ক্যাম্প

আজ ১৬ মার্চ শেষ হয় নবম বাংলাদেশ গণিত ক্যাম্প। একাদশ বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড থেকে নির্বাচিত সেরা ২৭ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে আয়োজন করা হয় এই ক্যাম্পের। ডাচ-বাংলা ব্যংকের পৃষ্ঠপোষকতা ও প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি আয়োজন করে এই গণিত ক্যাম্পের। ঢাকার আদাবরের পদক্ষেপ ইনস্টিটিউট অব ডেভলপমেন্ট অব ম্যানেজমেন্টে ৯ মার্চ শুরু হয় এই আবাসিক ক্যাম্প। গতকাল শুক্রবার ১৫ মার্চ রাতে অনুষ্ঠিত ক্যাম্পের সনদ বিতরণী ও সমাপনী পর্বে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সদস্য ও বাংলাদেশ প্রকেৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ বলেন, বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা যে মেধাবী এটা এখন আন্তর্জাতিক ভাবে প্রমানিত। আমাদের শিক্ষার্থীরা ম্যাথ অলিম্পিয়াড, ইনফরমেটিক্স অলিম্পিয়াডসহ আরও নানা মেধাভিত্তিক প্রতিযোগিতায় বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। আমি আশা করি এই ক্যাম্প থেকে এবার যারা আইএমওর জন্য নির্বাচিত হবে, তারা বিগত বছরের সাফল্যকে ধরে রেখে বিশ্বের সামনে দেশকে আরো ভালোভাবে উপস্থাপন করবে।' অনুষ্ঠানে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের উপ ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইদুল হাসান বলেন, আমাদের সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই আমরা গণিত অলিম্পিয়াডের সঙ্গে যুক্ত। ডাচ-বাংলা ব্যাংক শুধু ব্যাংকই নয় আরো বেশি কিছু করতেই এ ধরনের উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত থাকে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেণ বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান, ড্যাফোডিল আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক জাবেদ মোর্শেদ , বুয়েটের শিক্ষক অভীক রায়, একাডেমিক কাউন্সিলর সৌমিত্র চক্রবর্তী, গণিত অলিম্পিয়াডের সমন্বয়ক বায়েজিদ ভূঁইয়াসহ অনেকে।

Math camp

ক্যাম্পে শিক্ষার্থীদের গণিতের বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়, আলোচনা করা হয় বিগত বছরগুলোতে আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের প্রশ্নপত্র নিয়েও। এশিয়ান প্যাসেফিক ম্যাথ অলিম্পিয়াডের পরীক্ষাসহ মোট ৬টি ভিন্ন ধরনের পরীক্ষা এবং গাণিতিক মেধা ও যোগ্যতা যাচাইয়ের আয়োজনে অংশ নেয় শিক্ষার্থীরা। এই ক্যাম্পের ফলাফলের ভিত্তিতে ২০১৩ সালে কলম্বিয়ায় অনুষ্ঠেয় ৫৪তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের (আইএমও) জন্য বাংলাদেশ গণিত দল নির্বাচন করা হবে। গত বছর আইএমওতে রৌপ্যবিজয়ী ধনঞ্জয় বিশ্বাস, ব্রোঞ্জ বিজয়ী সৌরভ দাস, নূর মোহাম্মদ শফিউল্লাহ, অনারেবল মেনশন অর্জনকারী মির্জা তানজিম শরীফ ছিল ক্যাম্পে প্রশিক্ষক হিসাবে। ক্যাম্পে আসা চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুল ও কলেজের আহমেদ জাওয়াদ চেৌধুরি জানায়, প্রতিদিন রুটিন অনুসারে ক্লাস, প্রচুর অঙ্ক করা প্রথমে একটু সমস্যা হয়েছে, পরে সবার সহযোগিতায় ঠিক করে নিয়েছি'। ৭ দিনে বিভিন্ন সেশনের পুরো পরিকল্পনা করেছেন বাংলাদেশ গণিত দলের কোচ কোচ ড. মাহবুব আলম মজুমদার।

ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ২৫তম এশিয়ান প্যাসিফিক ম্যাথমেটিক্যাল অলিম্পিয়াড (এপিএমও)

 

আজ ১২ মার্চ  অনুষ্ঠিত হয়ে গেল এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের আঞ্চলিক গণিত অলিম্পিয়াড—এশিয়ান প্যাসিফিক ম্যাথমেটিক্যাল অলিম্পিয়াডের (এপিএমও) ২৫তম আয়োজন। ২৫তম এপিএমওতে অংশ নেওয়া বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত হয়েছে ঢাকার টিচার্স ট্রেনিং কলেজে। এপিএমওর নিয়ম অনুযায়ী অংশগ্রহণকারী প্রতিটি দেশের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা হয়েছে নিজ নিজ দেশে। এপিএমওর সদস্য ২৬টি দেশে একযোগে অনুষ্ঠিত হয়েছে পৃথিবীর এই সর্ববৃহৎ আঞ্চলিক গণিত অলিম্পিয়াড। তবে ভৌগোলিক অবস্থান ও সময়ের ব্যবধানের জন্য দেশভেদে কয়েক ঘণ্টার সময় পার্থক্য হয়ে থাকে। সে হিসাবে আমেরিকা অঞ্চলের দেশগুলোর অলিম্পিয়াড হয় ১১ মার্চ বিকেলে এবং বাংলাদেশসহ পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার দেশগুলোর অলিম্পিয়াড হয় ১২ মার্চ সকালে। বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠিত হলেও এপিএমওর পরীক্ষা হয় অভিন্ন প্রশ্নে। এবার অলিম্পিয়াডটি সমন্বয় করে জাপান। দেশের শীর্ষস্থানীয় বেসরকারি ব্যাংক ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং প্রথম আলোর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশে এপিএমওর আয়োজন করেছে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি। ঢাকায় অনুষ্ঠিত এপিএমওতে সারা দেশ থেকে আসা প্রাক্-বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের ৬২ জন শিক্ষার্থী অংশ নেন। উল্লেখ্য, এপিএমওর জন্য শতাধিক শিক্ষার্থী নিবন্ধন করলেও হরতালের কারনে অনেক শিক্ষার্থী উপস্থিত হতে পারে নাই।
বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠিত হলেও এপিএমওর পরীক্ষা হয় একই প্রশ্নে। মূল প্রশ্ন অলিম্পিয়াডে গণিতের পাঁচটি সমস্যা সমাধানের জন্য চার ঘণ্টা সময় দেওয়া হয়। প্রতিটি প্রশ্নের সর্বোচ্চ মান ছিল ৭। পরে সব শিক্ষার্থীর উত্তরপত্র মূল্যায়ন করে মেধাক্রম নির্ধারণ করা হবে। একই সঙ্গে প্রথম ১০ জনের ফলাফল এবং নমুনা হিসেবে প্রথম, তৃতীয় ও সপ্তম স্থান অধিকারীর উত্তরপত্র জাপানে পাঠানো হবে।

আজ শুরু হলো নবম বাংলাদেশ গণিত ক্যাম্প ২০১৩

বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি কর্তৃক আয়োজিত
নবম বাংলাদেশ গণিত ক্যাম্প ২০১৩ আজ বেলা ১২ টা থেকে শুরু হয়েছে । সকাল থেকে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ক্যাম্পার একেক করে উপস্থিত হতে থাকে ক্যাম্পে। ইতিমধ্যে প্রায় সকল ক্যাম্পারা এসে উপস্থিত হয়েছে।
এই ক্যাম্পে মোট ২৭ জন ক্যাম্পার অংশ নিচ্ছে। হায়ার সেকেন্ডারি ক্যাটাগরির ৭জন, সেকেন্ডারি ক্যাটাগরির ৬ জন এবং জুনিয়র ক্যাটাগরির ১৪ জন শিক্ষার্থী ।
ক্যাম্পটি পরিচালনা করবেন বাংলাদেশ গণিত দলের কোচ ড. মাহবুব আলম মজুমদার। ক্যাম্পটি শেষ হওয়ার কথা রয়েছে আগামী ১৬ মার্চ শনিবার।

ক্যাম্পের স্থান:
পদক্ষেপ ইনস্টিটিউট অব ডেভলপমেন্ট এন্ড ম্যানেজমেন্ট
(পদক্ষেপ মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্র)
বাড়ি # ৬৭৯, রোড #১২, বায়তুল আমান হাউজিং সোসাইটি, আদাবর, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭।

জয় গণিত ক্যাম্প !