সশরীর রাশিয়ায় গিয়ে এবারও আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের উদ্বোধনী আয়োজনে অংশ নেওয়ার সুযোগ ছিল না কারও। বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে নতুন বাস্তবতায় অলিম্পিয়াডের ইউটিউব চ্যানেলে চোখ রেখেই এই আয়োজনের সঙ্গী হতে হয়েছে। সুরের মূর্ছনা ও নৃত্য-গীতের জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি অবশ্য রেকর্ডেড (আগে ধারণ করা) ছিল। বাংলাদেশ সময় গতকাল রোববার সন্ধ্যায় উদ্বোধনী আয়োজনে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর প্রতিযোগীদের ভিডিও বার্তা প্রচার করা হয়।

৬১তম আসরের মতো আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের (আইএমও) ৬২তম আসরও হচ্ছে রাশিয়ায়। অংশ নিচ্ছে ১০০ দেশের পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী। এবারও পরীক্ষাসহ পুরো আয়োজন হচ্ছে ভার্চ্যুয়ালি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মিখাইল ভি মিশুস্তিন, সেন্ট পিটার্সবার্গের গভর্নর আলেকজান্ডার বেগলভ ও আইএমও সভাপতি জিওফ স্মিথের ভিডিও বার্তা প্রচার করা হয়। রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গ থেকে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষাসহ যাবতীয় আয়োজন ভার্চ্যুয়ালি নিয়ন্ত্রণ করা হবে।


এ বছর আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ থেকে অংশ নিচ্ছে ছয় শিক্ষার্থী। তাদের জন্য অলিম্পিয়াড কমিটি চারটি পরীক্ষাকেন্দ্র ঠিক করেছে। মূলত করোনার কারণে যে যেখানে অবস্থান করছে, সেখানেই পরীক্ষাকেন্দ্র করা হয়েছে। পরীক্ষা হবে আজ সোমবার ও আগামীকাল মঙ্গলবার। ফল ঘোষণা করার কথা রয়েছে ২৪ জুলাই।


আয়োজকেরা জানান, ছয় শিক্ষার্থীর মধ্যে দুজনের পরীক্ষাকেন্দ্র ঢাকায়, ময়মনসিংহ থেকে পরীক্ষায় অংশ নেবে দুজন, কুষ্টিয়া থেকে একজন এবং মায়ের অসুস্থতার কারণে চিকিৎসার জন্য এখন ভারতের দিল্লিতে অবস্থান করা আরেক শিক্ষার্থী সেখান থেকেই ভার্চ্যুয়ালি পরীক্ষায় অংশ নেবে। আইএমওতে এবার বাংলাদেশ গণিত দলের সদস্য হিসেবে অংশ নিচ্ছে মো. মারুফ হাসান, তাহমিদ হামীম চৌধুরী, মো. ফোয়াদ আল আলম, তাহজিব হোসেন খান, আদনান সাদিক ও নুজহাত আহমেদ। ছয় প্রতিযোগীর দলনেতা বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড দলের কোচ ড. মাহবুব মজুমদার, উপদলনেতা বাংলাদেশ আইএমও দলের সাবেক সদস্য সাজিদ আকতার।


ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ও প্রথম আলোর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি দেশজুড়ে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে নানা ধাপে গণিত দলের সদস্যদের নির্বাচন করে।